শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:০৩ পূর্বাহ্ন

সুবর্ণচরে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় আহত-৬

আহসান হাবীব স্টাফ রিপোর্টারঃ-

নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার ৫নংচরজুবিলী ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় ছয়জন আহত হয়েছেন।

শুক্রবার (১১ ফেব্রুয়ারী) সকালে ইউনিয়নের পাংখার বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- সালাহ উদ্দিন, মুরাদ, সোহেল, আলমগীর ও হুমায়ুন। এছাড়া আরেকজনের নাম জানা যায়নি।

এর মধ্যে সালাহ উদ্দিন চরজুবিলী ইউপির ৪নং ওয়ার্ডের বিজয়ী মেম্বার মনজুর আলমের বড়ভাই।

আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার ৫নং চরজুবিলী ইউপি নির্বাচনের পর শুক্রবার সকালে বিজয়ী মেম্বার মনজুর আলম স্থানীয় বাজারে পরাজিত প্রার্থী মো. খলিল উল্যাহর সঙ্গে দেখা করে কোলাকুলি করেন। কিছু সময় পর গুজব ছড়িয়ে পড়ে মনজুর আলম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী খলিলকে আটকে রেখেছেন। এতে উত্তেজিত হয়ে খলিলের সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্র, লোহার রড নিয়ে মনজুর আলমের সমর্থকদের ওপর হামলা করেন। এতে ছয়জন আহত হন।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ইউপি সদস্য মনজুর আলম জানান, বিজয়ী হওয়ার পর তিনি কর্মী-সমর্থকদের বিজয় মিছিল বা কাউকে জড়ো হতে দেননি। তিনি বাজারে এসে পরাজিত সদস্য খলিল উল্যাহর সঙ্গে কোলাকুলি করেন। এছাড়া বাজারের অন্য ব্যবসায়ীদের সঙ্গে দেখা করে একরামনগর বাজারে চলে আসেন।

এরপর তিনি জানতে পারেন তার লোকজনকে খলিল মেম্বারের ছোটভাই মাইন উদ্দিন ও ভাগিনা ইউসুফের নেতৃত্বে দেলোয়ার, আশরাফসহ ১০-১২ জন হামলা চালিয়ে এলোপাতাড়ি মারধর করেছে। তিনি ছুটে এসে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে খলিল উল্যাহ বলেন, তার কোনো লোক হামলার ঘটনার সঙ্গে জড়িত নন। তাদের নিজেদের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে এ ঘটনা ঘটেছে।

চরজব্বার থানার ওসি মো. জিয়াউল হক বলেন, হামলার পর ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। জড়িতদের ধরতে পুলিশ কাজ করছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুক পেজ
ব্রেকিং নিউজ